কারখানার ক্ষমতার দখলদারি নিয়ে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠলো পূর্ব বর্ধমানের গলসি

Subscribe Us

কারখানার ক্ষমতার দখলদারি নিয়ে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠলো পূর্ব বর্ধমানের গলসি

 


শুক্রবার সকাল থেকেই গলসির সিংপুর গ্রামে চলে ব্যাপক বোমাবাজি। এলাকার একটি রাইস ব্রান তেল মিলে ক্ষমতা দখলকে কেন্দ্র করে গণ্ডগোলের সূত্রপাত।শাসক দলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে ঝামেলা বাঁধে।তৃণমূল কংগ্রেসের দুই গোষ্ঠীই সিংপুর গ্রামে বোমাবাজি করে।  তবে তৃণমূল নেতৃত্ব গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কথা অস্বীকার  করে জানান, মিল মালিকের সঙ্গে শ্রমিকদের বোনাস নিয়ে ওই ঝামেলা হয়। এর সঙ্গে দলের কোন সম্পর্ক নাই।জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সহসভাপতি জাকির হোসেন বলেন এখানে বোনাস সহ বিভিন্ন দাবীদাওয়া নিয়ে মালিকের সঙ্গে শ্রমিকদের গণ্ডগোল হয়।জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি ইফতিকার আহম্মদ ও তৃণমূল নেতা খোকন দাস বিষয়টি মিমাংসা করতে কারখানায় গেলে কিছু বহিরাগত লোকজন অশান্তি পাকানোর জন্য বোমাবাজি করে।এর সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের কোন যোগ নাই। কারণ শ্রমিকদের মধ্যে সব দলেরই লোক আছে।বাইরের লোকজন এলাকায় অশান্তি করার জন্যই এদিন হামলা করে।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, গতকাল থেকেই কারখানার দখল নিয়ে এলাকায় অশান্তি শুরু হয়েছে। বোমাবাজির পর থেকেই  পুরুষ শুন্য এলাকায়।  থমথমে গোটা গ্রাম। শুক্রবার সকাল আটটার সময়  মিলের শ্রমিকদের বোনাসকে কেন্দ্র করে  বোমাবাজি শুরু হয়।  খবর পেয়ে গলসি থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ঘটনায় জড়িতদের ধরপাকড়ের জন্য  পুলিশ তল্লাসি শুরু করেছে। স্থানীয়রা জানান,  গ্রামের কাছে ভাসাপুল মোড়ে বেসরকারি  রাইস ব্রান তেলের মিল আছে। যেখানে সিংপুর গ্রামের বহু মানুষ শ্রমিকের কাজ করেন। মিলের শ্রমিকদের পুজোর বোনাসকে কেন্দ্র করে গতকাল একজনকে মারধর করা হয়। ঘটনার পর গতকালই জেলার তৃণমূল নেতৃত্ব আলোচনায় বসে শ্রমিক ও মালিক পক্ষকে নিয়ে। বচসা থেকে হাতাহাতিতে জড়ায় শ্রমিকরা।এদিন সকালে আচমকা গ্রামের তৃণমূল নেতা হাসু মণ্ডল ও বকুল সেখের গোষ্ঠীর লোকজন গ্রামে বোমাবাজি শুরু করে। মিলে নিজেদের ক্ষমতা দেখাতে গ্রামের ভিতরে ফাটানো হয় আট দশটি বোমা। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ঘটনায় পুলিশ বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে। গ্রামে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ। গ্রামের বাসিন্দা নাজিয়ারা সেখ বলেন, তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর লোকজনই এদিন গ্রামে বোমাবাজি করে।

Post a comment

0 Comments