বিরল কচ্ছপ উদ্ধার হল বর্ধমানে

Subscribe Us

বিরল কচ্ছপ উদ্ধার হল বর্ধমানে



বিরল কচ্ছপ উদ্ধার হল বর্ধমানে।কচ্ছপটির গোটা গায়ের রং হলুদ। যদিও বর্ধমান বনবিভাগের প্রধান দেবাশীষ শর্মা বলেন রঙের জন্য দেখতে আলাদা হলেও এটি দেশীয় প্রজাতির কচ্ছপ। সোমবার পূর্ব বর্ধমানের দেওয়ানদিঘি থানার দাসপুরের একটি পুকুর থেকে হলুদ রঙের কচ্ছপটি উদ্ধার হয়।স্থানীয় বাসিন্দা বামদেব ভট্টাচার্য পুকুরে মাছ ধরার জন্য জাল ফেলে।সেই জালেই এই বিরল রঙের কচ্ছপ উঠে আসে। স্বাভাবিক ভাবেই এই কচ্ছপটি কেন্দ্র করে কার্যত গোটা এলাকায় হুলুস্থুল পড়ে যায়।কচ্ছপ দেখতে প্রচুর লোকজন জড়ো হয়। বামদেব ভট্টাচার্য বলেন, মাছ ধরার সময় পুকুরের জাল ফেলা হয়েছিল। কিন্তু জাল পুকুরের জল থেকে পাড়ে তোলার সময় দেখা গেল মাছের সঙ্গে একটি হলুদ রঙের প্রাণী।প্রথমে আমরা সকলেই একটু ভয় খেয়ে যায়।তারপর জাল থেকে বের করে দেখা যায় ওটি কচ্ছপ। তবে এই রকম হলুদ রঙের কচ্ছপ আমি তো বটেই এলাকার কেউ কখনো দেখে নি।মুখে মুখে খবর রটতেই লোকজন জড়ো হতে শুরু করে পুকুরপাড়ে। 
তিনি বর্ধমানের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে খবর দিলে তাঁরা কচ্ছপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় এবং বন বিভাগের হাতে তুলে দেয়।বর্ধমান বনবিভাগের প্রধান দেবাশীষ শর্মা বলেন, এটি বিরল থেকে বিরলতর।সাধারণত এই ধরণের বা এই রঙের মানে হলুদ রঙের কচ্ছপ দেখা যায় না। চলতি বছরের গত জুলাই মাসে এমন একটি কচ্ছপ ধরা পড়ে ওড়িশার বালেশ্বর থেকে। 
কচ্ছপটির প্রজাতি ইণ্ডিয়ান সফট শেল।যা দেশীয় প্রজাতির বা গঙ্গা কচ্ছপ বলেই সবাই চেনে।কিন্তু জিনের বৈচিত্র্যের কারণে বা ডিএনএর জন্য কচ্ছপটির গায়ের রঙ হলুদ। খাল, বিল, নদী, পুকুরে এই কচ্ছপই পাওয়া যায় কিন্তু এই রং বিরল। তিনি বলেন এটা আলবিনো। যেমন ব্ল্যাক প্যান্থার আসলে চিতাবাঘ। কিন্তু পিগমেন্টে গণ্ডগোলের জন্য গায়ের রং কালো দেখায়। সাদা কাক, সাদা বাঘ সবই জিনঘটিত কারণে হয়।পশু চিকিৎসক আগে কচ্ছপটির শারীরিক পরীক্ষা করবেন তারপর তাঁরা সিদ্ধান্ত নেবেন কিভাবে সেটিকে রাখা হবে।যেহেতু কচ্ছপটি দীর্ঘক্ষণ মাছ ধরার জালে আটকে ছিল তাই গায়ে আঘাত পেয়ে থাকতে পারে। তবে আপাতত দেশীয় প্রজাতির হলেও বিরল এই কচ্ছপটির ঠাঁই হবে বর্ধমানের মিনি জু রমনারবাগানে।

Post a comment

0 Comments