কিষাণ মাণ্ডিতে সহায়ক মূল্যের ধান ক্রয়ের টোকেনে দুর্নীতির অভিযোগ

Subscribe Us

কিষাণ মাণ্ডিতে সহায়ক মূল্যের ধান ক্রয়ের টোকেনে দুর্নীতির অভিযোগ



কিষাণ মাণ্ডিতে সহায়ক মূল্যের ধান ক্রয়ের টোকেনে দুর্নীতির অভিযোগ, ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ালো পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে।ভাতার কৃষক বাজারে সরকারিভাবে সহায়ক মূল্যের ধান ক্রয় করা হচ্ছে।সেই ধান বিক্রয় করতে গেলে চাষীকে টোকেন সংগ্রহ করতে হচ্ছে কিষান মাণ্ডি থেকে। কিন্তু প্রকৃত যারা চাষী প্রতিদিনই তাদেরকে ফিরে যেতে হচ্ছে ।অভিযোগ প্রতিদিন কিষাণমাণ্ডি থেকে ৩০ জনকে টোকেন দেওয়া হয়। কিন্তু কৃষকরা যখন আসেন তখন দেখছেন প্রতিদিনই ৩০ জন চাষির নাম নথিভুক্ত হয়ে যাচ্ছে সাতসকালেই ।এই অভিযোগে বৃহস্পতিবার  ব্যাপক উত্তাল হয়ে উঠল ভাতার কৃষক বাজার।অভিযোগ তুলে কৃষাণমাণ্ডিতে এদিন বিক্ষোভ দেখালেন কৃষকরা।এই ঘটনা ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়।এদিন দেখা যায় শতাধিক কৃষক টোকেন না পেয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন।পরে খাদ্যদফতরের আধিকারিকদের আশ্বাসে বিক্ষোভ ওঠে।কি কারণে এই ঘটনা ঘটছে তদন্তের দাবি জানাচ্ছেন চাষীরা।
স্থানীয় কৃষক স্বরূপ সরকার জানান,আজ তিনদিন আসছি টোকেন সংগ্রহ করতে ।কিন্তু প্রতিদিনই ফিরে যেতে হচ্ছে। এই টোকেন নিয়ে দারুণ জালিয়াতি হচ্ছে আমার মনে হয় ।কারণ যত ভোরেই আসছি নাম পূরণ হয়ে যাচ্ছে। অথচ কাউন্টারে মাত্র দু থেকে তিনজন চাষী থাকছেন। আমরা চাই সরকারের সঠিক তদন্ত করুন।
তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেন ব্লক কৃষি আধিকারিক। কৃষি আধিকারিক মুকুল রায় বলেন অভিযোগ সঠিক নয়।কারণ প্রতিদিন ৩০ থেকে ৪০ জন চাষীকে সরকারি সহায়ক মূল্য ধান বিক্রির জন্য টোকেন দেওয়া হচ্ছে। ঘটনা এলাকার প্রচুর কৃষক টোকেনের জন্য আবেদন করছেন।কিন্তু কোন বেআইনি কাজ কিছু হচ্ছে না।আমরা চেষ্টা করছি আরো বেশি কৃষকে টোকেন দেওয়ার।

Post a comment

0 Comments