পান্ডবেস্বরে ৩৫০ বছর ধরে অধিষ্ঠাত্রী মা কিরিটি

Subscribe Us

পান্ডবেস্বরে ৩৫০ বছর ধরে অধিষ্ঠাত্রী মা কিরিটি

 


সোমনাথ মুখার্জী,পাণ্ডবেস্বর:-আজ থেকে আনুমানিক ৩৫০ বছর পূর্বে পাণ্ডবেস্বর এলাকায় ন্যায় পঞ্চানন ভট্টাচার্য্য নামে এক পন্ডিত মানুষ এই মায়ের পূজার প্রচলন করেন। অজয় নদের তীরে অবস্থিত পাণ্ডবেস্বর সেই সময় এখানকার মত ছিলনা,এলাকার চতুর্দিকে ছিল জঙ্গলে পরিপূর্ণ। এলাকায় হিংস্র জীবজন্তুর ছিল আনাগোনা। এলাকায় ভট্টাচার্য পরিবারের কিছু মানুষ পরিবার নিয়ে থাকত এলাকায়।পরিবারের বর্তমান সদস্য সব্যসাচী ভট্টাচার্য্য জানান,পান্ডবেস্বরের নামোপাড়া এলাকায় মা কালি কিরিটি কালি নামেই খ্যাত। প্রাচীন কাল থেকেই নিয়ম রীতি মেনেই পুজো চলে আসছে। বলিদান প্রথা রয়েছে এই পুজোয়। হয় ছাগ বলি। পুজো একদিনের কিন্তু এই মায়ের পুজো ঘিরে এলাকার মানুষের উন্মাদনা থাকে তুঙ্গে কারণ  বাঙালির সবথেকে বড় উৎসব দুর্গাপুজো থেকেই বেয়াই আনন্দ করেন এলাকার মানুষ। বহু দূরদূরান্ত থেকে ভক্তরা আসেন কারো মানত পূরণ হবার আনন্দে বার কেও আসেন মায়ের কাছে মানত করতে। কথিত আছে পান্ডবেস্বরের এই কিরিটি মা ভক্তের মানত পূরণ করেন। যে ভক্তই কোনো মানত নিয়ে মায়ের কাছে আসেন মা তাদের শুন্য হাতে ফেরান না ,এমনটাই প্রচলিত এলাকায়। ভট্টাচার্য পরিবারের এক মহিলা সদস্যা জানান, মায়ের মন্দিরের সংস্কারের সময় এক মহিলা শ্রমিক অশুচি অবস্থায় মন্দিরের সংস্কারের কাজে যোগ দিয়েছিলেন,কিন্তু হঠাৎ সেই মহিলা অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান। কথিত আছে  পরে জানা যায় ওই মহিলাকে মা স্বপ্নদেশে জানান যে সে কেন অশুচি অবস্থায় মন্দিরে প্রবেশ করেছিল ? পরদিন ওই মহিলা মন্দিরে পুজো দিয়ে মায়ের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। তার পর থেকে এই মন্দিরে অসাবধানতাবশত ও কেও অশুচি অবস্থায় মন্দিরে প্রবেশের সাহস করেন না।

Post a Comment

0 Comments

close