হাওড়া বর্ধমান লোকাল ট্রেন চালু হলেও ব্রাত্য বর্ধমান রামপুরহাট রেলপথ,ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার বাসিন্দারা

Subscribe Us

হাওড়া বর্ধমান লোকাল ট্রেন চালু হলেও ব্রাত্য বর্ধমান রামপুরহাট রেলপথ,ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার বাসিন্দারা

 


হাওড়া বর্ধমান সহ বিভিন্ন রেলপথে লোকাল ট্রেন বুধবার থেকে চালু হলেও ব্রাত্য বর্ধমান রামপুরহাট রেলপথ। ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার বাসিন্দারা। লোকালের দাবীতে সরব হয়েছেন এলাকার জনপ্রতিনিধিরাও।দীর্ঘ সাড়ে সাত মাস লোকাল ট্রেনের চাকায় তালা খুলেছে।যদিও সব লোকাল ট্রেনই এখনো চালু হয় নি। সামাজিক দূরত্ব বা কোভিড বিধি মেনে ট্রেন চালানের জন্য ধীরে ধীরে লোকাল ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে ।বর্ধমান হাওড়া মেইন ও কর্ড শাখায় আপাতত ৩৮ জোড়া লোকাল ট্রেন চালুর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল রেল কর্তৃপক্ষ।বর্ধমান কাটোয়া রেলপথে চলছে চারটি লোকাল।তবে ভীড় এড়াতে বর্ধমান হাওড়া মেইন রাস্তার লাইনে ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।কিন্তু বর্ধমান রামপুরহাট রেলপথে কোন লোকাল ট্রেন চালু হয় নি। এতেই ক্ষোভ বেড়েছে এলাকার বাসিন্দাদের।
বর্ধমান রামপুরহাট রেল শাখায় প্রতিদিন ১০ জোড়া লোকাল ট্রেন চলে।এই রেলপথ পূর্ব বর্ধমানের একাংশ ও বীরভূম জেলাতো বটেই উত্তরবঙ্গের লাইফ লাইন। অথচ প্রথম পর্যায়ে এই রেলপথে একটিও লোকাল ট্রেন চালু হয় নি। আউশগ্রামের বিধায়ক অভেদানন্দ থাণ্ডার বলেন লোকাল ট্রেন চালু তো করতেই হবে।না হলে মানুষজন বড় সমস্যায় পড়বেন।এমনিতেই গুসকরা সহ গোটা এলাকার বাসিন্দারা  বা নিত্যযাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে আছেন। সাড়ে সাত মাস ধরে লোকাল ট্রেন চলছে না কোভিডের জন্য।আর্থিক ভাবে মানুষ সংকটে আছেন। তাঁর সাফ দাবি বর্ধমান রামপুরহাট রেল পথে লোকাল ট্রেন চালু হোক।একই দাবী গলসির বিধায়ক অলোক মাঝির।তিনি বলেন বর্ধমান আসানসোল রেলপথ একটি গুরুত্বপূর্ণ রেলপথ। এখানে কেন লোকাল ট্রেন চালু করার বিষয়ে রেল নীরব তা বোঝা যাচ্ছে না।তাঁরও দাবী অতি দ্রুত এই রেলপথে লোকাল ট্রেন চালু করার।
বর্ধমান রামপুরহাট রেল পথের নওয়াদার ঢাল স্টেশনের স্টেশন মাষ্টার আনন্দ এক্কা জানান লোকাল ট্রেন কবে চালু হবে জানি না। কোন খবর নেই এই বিষয়ে।এই রেলপথের দূরত্ব ১২৬ কিলোমিটার। ছোট বড় মিলিয়ে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন আছে। আছে বোলপুরের শান্তিনিকেতন, তারাপীঠ, মল্লারপুর, সাঁইথিয়া বা গুসকরার মত স্টেশন। তবুও এই রেলপথে লোকাল ট্রেন চলছে না। গুসকরার বাসিন্দা চিরঞ্জিৎ ব্যানার্জী বলেন বর্ধমান কাটোয়া রেলপথে লোকাল ট্রেন চালু হচ্ছে। অথচ আমাদের রেললাইনে লোকাল ট্রেন চালু হবে না। জানি না রেল কি ভাবছে। নওয়াদার ঢাল রেলযাত্রী সমিতির সদস্য অভিজিৎ মণ্ডল বলেন লোকাল ট্রেন চালু করতেই হবে, না হলে তো  আমরা মাঠে মারা যাবো।লোকাল ট্রেনের দাবির পাশাপাশি তিনি বলেন লোকাল ট্রেন চালু না হলে তাঁরা আন্দোলনে নামবেন।তবে এই বিষয়ে বোলপুরের সাংসদ অসিত মাল কিছু মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন।তিনি বলেন রাজ্য সরকার দেখছে গোটা বিষয়টি। বনপাস স্টেশনের নিত্যযাত্রী বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মী বিশ্বজিৎ  চ্যাটার্জী বলেন লোকাল ট্রেন চালু করতেই হবে। না হলে এলাকার মানুষজন আরও সংকটে পড়বে।
গুসকরার বস্ত্র ব্যবসায়ী মনোরঞ্জন গুঁই বলেন আমরাও ভেবে ছিলাম। বেশী না হোক কয়েকটি লোকাল ট্রেন নিশ্চয় চালু হবে আমাদের লাইনে।কিন্তু দেখা গেল অন্যসব লাইন বা রেলপথে লোকাল ট্রেন চালু হলেও আমাদের কপালে ট্রেন জোটে নি।
পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক নিখিল চক্রবর্তী বলেন এখনো পর্যন্ত লোকাল ট্রেন চালুর বিষয়ে তাঁর কাছে কোন খবর নেই।

Post a Comment

0 Comments

close