টানা তিন দিনের চেষ্টার পর আজ সন্ধ্যায় দুর্গাপুর ব্যারেজের ৩১ নম্বর লগ গেটের মেরামতির কাজ শুরু

Subscribe Us

টানা তিন দিনের চেষ্টার পর আজ সন্ধ্যায় দুর্গাপুর ব্যারেজের ৩১ নম্বর লগ গেটের মেরামতির কাজ শুরু



টানা তিন দিনের প্রচেষ্টার পর আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুর ব্যারেজের ৩১  নম্বর  লগ গেটের কাছে জলের স্রোত আটকিয়ে মেরামতির কাজ শুরু হয়েছে। আগামীকাল রাতের মধ্যে এই কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন রাজ্য সেচ দপ্তরের সচিব গৌতম মুখোপাধ্যায়। তিনি জানান,পাম্পের সাহায্যে জমা জল বের করার কাজ চলছে। ইতিমধ্যে মেরামতির  কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে। আগামীকাল রাতের মধ্যেই এই কাজ শেষ হবে  বলে তিনি জানানা।  কাজ শেষ হওয়ার পরই দ্রুত  পরিস্থিতি যাতে স্বাভাবিক হয় সেজন্য ইঞ্জিনিয়ারদের পরামর্শ মতো মেরামতির কাজ শেষ হওয়ার আগে নির্দিষ্ট  সময়ের ব্যবধানে দুর্গাপুর জলাধার পূর্ণ করতে জল ছাড়ার জন্য  জানিয়ে দেওয়া হবে।  কারন পাঞ্চেত থেকে দুর্গাপুরে জল আসতে কয়েক ঘন্টা সময় লাগে। আশা করা যাচ্ছে কাজ শেষ হওয়ার সাথে সাথেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে তিনি জানান। 
 উল্লেখ্য, গত শনিবার ভোরে দুর্গাপুর ব্যারেজের ৩১  নম্বর লকগেট  বেঁকে গিয়ে হুহু করে জল বেরিয়ে যেতে থাকে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন সেচ দপ্তরের আধিকারিক, জনপ্রতিনিধিরা। আসেন ইসিএল, ডিপিএল এবং সেচ দপ্তরের প্রযুক্তিবিদরা। কলকাতা থেকে বিশেষজ্ঞরাও আসেন। লকগেটটি  মেরামতির জন্য পাঁচটি গেট খুলে জলাধার খালি করা হয়।জলাধার খালি হলেও ৩১ নং  লকগেটের কাছে জলের গভীরতা  সবচেয়ে বেশি থাকায় মেরামতির কাজ শুরু করা যায়নি।বালির বস্তা ফেলে জল আটকানোর চেষ্টা করা হয়।কিন্তু জলের গভীরতা এবং স্রোত সেই কাজে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়।বড় বড় জেসিবি মেশিন লাগিয়ে দিন রাত কাজ চলে।অবশেষে আজ সন্ধ্যায় জল আটকানো সম্ভব হয়।
এদিকে জলাধার জনশূন্য হতেই দুর্গাপুরের বিভিন্ন জায়গায় পানীয় জলের সংকট দেখা দেয়।কলকারখানাতেও জলের সংকট দেখা দেয়।প্রশাসনের ও পুরসভার পক্ষ থেকে ট্যাংকারে করে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে জল সরবরাহ করা হয়রবিবার সন্ধ্যা থেকেই।পানীয় জল না পেয়ে কয়েকটি জায়গায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন বাসিন্দারা।

Post a Comment

0 Comments

close