স্বাস্থ্যসাথীতে পরিষেবা না দিলে লাইসেন্স বাতিল

Subscribe Us

স্বাস্থ্যসাথীতে পরিষেবা না দিলে লাইসেন্স বাতিল



নিজস্ব সংবাদদাতা :-'স্বাস্থ্যসাথী আমার সাথী, আমিও সেই পরিষেবা পেয়েছি। সব বেসরকারি হাসপাতাল, বড়-ছোট হাসপাতাল স্বাস্থ্যসাথীতে যুক্ত হবে। এটা সরকারি প্রকল্প, সাধারণ মানুষকে এই সুবিধা দিতেই হবে। সাধারণ মানুষকে এই নিয়ে হয়রানি করলেই থানায় গিয়ে পুলিশে অভিযোগ করবেন। এই অভিযোগ পেলে সরকার তা খতিয়ে দেখে লাইসেন্স বাতিল করার ক্ষমতা রাখে।' স্বাস্থ্যসাথী নিয়ে বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে এই ভাষাতেই কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী বলেন,  'অনেক বড় বড় হাসপাতাল আছে, যারা বলছে এখানে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড চলবে না, তাদের বলছি চালাতে হবে।' রীতিমতো নির্দেশের সুরেই এ কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি উল্লেখ করেন, 'জেলার ছোট ছোট নার্সিং হোমগুলো আছে, তাদের বলছি স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের পরিষেবা দিতে।' এখানেই শেষ নয়। এই নির্দেশ যে কেবল মৌখিক নয়, তাও স্পষ্ট করে দেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রয়োজনে যে কড়া শাস্তি মিলবে সরকারি নির্দেশ অমান্য করলে, তাও জানিয়ে দেন।  দু'দিন আগেই সমস্ত জেলার জেলাশাসক, সিএমওএইচ, ডেপুটি সিএমওএইচ, হাসপাতাল ও নার্সিংহোমগুলির সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক করেছিলেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সেখানে তিনিও বলেছিলেন, সরকারের কাছে যেন এমন অভিযোগ না আসে যে, স্বাস্থ্যসাথী কার্ড রয়েছে অথচ নার্সিংহোমে পরিষেবা পাচ্ছেন না। তেমন হলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে লাইনে দাঁড়িয়ে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিয়েছেন গত ৫ জানুয়ারি। নিজেকে 'সাধারণ মানুষ' হিসেবে তুলে ধরেছেন তিনি। তার পরে এই কার্ডকে যে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে, মুখ্যমন্ত্রীর এদিনের কড়া বার্তা সে কথাকেই স্পষ্ট করলো। 

Post a comment

0 Comments