কম উৎপাদন, বাংলায় বাড়ছে পোলট্রি মুরগির দাম

Subscribe Us

কম উৎপাদন, বাংলায় বাড়ছে পোলট্রি মুরগির দাম



নিজস্ব সংবাদদাতা :    করোনার দাপট এখনও নির্মূল হয়নি। এরই মধ্যে বার্ড ফ্লু নিয়ে উদ্বেগ ক্রমশ বাড়ছে একাধিক রাজ্যে। বার্ড ফ্লু'র সংক্রমণ রুখতে বেশ কয়েকটি রাজ্যে পোলট্রির মুরগির মাংস এবং ডিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ হয়েছে। এর ফলে হুড়মুড়িয়ে কমেছে দামও। চন্ডিগরে এক লাফে অনেকটাই কমেছে পোলট্রি পণ্যের দাম।এমনিতেই করোনা এবং লকডাউনের জেরে প্রচুর ক্ষয়ক্কতির মুখে পড়তে হয়েছিল এই বিক্রেতাদের। বার্ড ফ্লু'র জেরে এখন ফের মুরগির বিক্রি ও দাম কমায় মাথায় হাত বিক্রেতাদের। বিক্রেতারা  জানাচ্ছেন যে মোট ৩০ শতাংশ বিক্রি কমেছে। গত কয়েকদিনে শয়ে শয়ে পাখির মৃত্যু হয়েছে কেরল, হিমাচল প্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানে। বার্ড ফ্লু-কে 'রাজ্যের বিপর্যয়' ঘোষণা করে কেরলের দুই রাজ্যে সতর্কতা জারি করল বিজয়ন সরকার।  এদিকে বাংলায়  বার্ড ফ্লু  ধরা না পড়লেও, বেড়ে চলেছে পোলট্রি মুরগির দাম। ব্যবসায়ীদের দাবি, কম উত্পাদনের কারণে চড়ছে মুরগির দাম। কলকাতায় ইতিমধ্যে চড়তে শুরু করেছে পোলট্রি মুরগির দাম। পাইকারি বাজারে গোটা ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১১৯ টাকায়। মোরগের কেজি ছুঁয়েছে ১৪০ টাকায়। ব্যবসায়ীদের দাবি এক মাস আগেও মুরগির কেজি ১০০ টাকার নীচে ছিল।  বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বার্ড ফ্লু বা অ্যাভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা পাখিদের এক ধরনের জ্বর। যার জন্য দায়ী এইচ৫এন১ ভাইরাস।বার্ড ফ্লু রোগে আক্রান্ত হাঁস-মুরগির মাংস ও ডিম থেকে মানুষের শরীরে প্রবেশ করতে পারে এই ভাইরাস। এইচ৫এন১ ভাইরাস আক্রান্ত পরিযায়ী পাখিদের মাধ্যমে এই রোগ খুব দ্রুত এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থাকে। করোনা আবহে বার্ড ফ্লু নিয়ে অত্যন্ত সতর্ক থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিত্সকরা। যদিও বিশেষজ্ঞদের মত, 'এখনই প্যানিক করার মত কিছু হয়নি। কাঁচা মাংস কিংবা কাঁচা ডিম না খেলে বার্ড ফ্লু হওয়ার সম্ভাবনা নেই। মাংস, ডিম ভাল করে ফুটিয়ে রান্না করলে বিপদ কেটে যাচ্ছে।'

Post a Comment

0 Comments

close