স্বামীকে ফিরে পেতে ধর্ণায় বসলেন গৃহবধূ

Subscribe Us

স্বামীকে ফিরে পেতে ধর্ণায় বসলেন গৃহবধূ



স্বামীকে ফিরে পেতে ধর্ণায় বসলেন গৃহবধূ।ঘটনা পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে। ভিন ধর্মে বিয়ে।পরিবারের পক্ষ থেকে এই সম্পর্ক মেনে না নেওয়ায় নবদম্পতি মাস দু'য়েক বাইরে বাইরেই কাটাচ্ছিলেন।এরপর বধূ তার স্বামীর সঙ্গে শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে স্বামীকে রেখে তিনি একা ফিরে যান। তারপর থেকে দিনপাঁচেক হল স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না স্ত্রী।বারে বারে চেষ্টা করেও কোন ভাবেই স্বামীর সঙ্গে কোন যোগাযোগ করতে পারেন নি গৃহবধূ। তাই শেষমেশ 
স্বামীকে ফিরে পেতে শ্বশুরবাড়ির দরজার সামনে দিনভর ধর্ণায় বসলেন স্ত্রী।ভাতার থানার কালিপাহাড়ি গ্রামে সোমবার এই ঘটনা ঘিরে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। ফিরোজা খান(দে) নামে গৃহবধূ কলকাতা থেকে এদিন কালিপাহাড়ি গ্রামে এসে তার 'শ্বশুরবাড়ির' সামনে ধর্ণায় বসেন।তাঁর একটাই দাবি, আমার স্বামীকে বের করে দিন।" যদিও ওই বধূর স্বামী কৃষাণু দে কে এলাকায় দেখা যায়নি। 
কৃষাণুর বাবা চন্দ্রশেখর দে পরিস্কার জানান,  আমার ছেলে বাড়ির অমতে ও বাড়িতে না জানিয়েই ভিন ধর্মে বিয়ে করেছে।এই বিয়ে আমরা মানি না।যদিও আমার ছেলে প্রাপ্তবয়স্ক।তাই তাকে বাধা দিতেও চাইনা।তবে ছেলেকে বলেছি বাড়িতে জায়গা হবে না।তারপর সে কোথায় গিয়েছে আমি জানি না। 
ফিরোজা খানের(দে) বাপেরবাড়ি কলকাতার গড়িয়াহাট এলাকায়। তিনি জানান মাস দশেক আগে ফেসবুকের মাধ্যমে কালিপাহাড়ি গ্রামের কৃষাণুর সঙ্গে তার প্রথম পরিচয় হয়।তারপর ফোনে কথোপকথন হতে থাকে।এই ভাবেই দু'জনের সম্পর্ক তৈরি হয়। ফিরোজা জানান মাসদুয়েক আগে তারা কালীঘাট মন্দিরে গিয়ে হিন্দু মতে বিয়ে করেন। কিন্তু দুই পরিবারের পক্ষ থেকেই আপত্তি থাকায় তারা দু'জনে ঘরভাড়া করে ছিলেন বলে জানান ফিরোজা।
এদিন সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ কালিপাহাড়ি গ্রামে চলে আসেন ফিরোজা।তিনি কৃষাণুদের বাড়ির সামনে ধর্ণা শুরু করেন। ফিরোজা বলেন, ''আমার স্বামী বলেছিলেন বাড়ি আসবে, মায়ের জন্য মনখারাপ করছে।তাই আমি গত ৩১ ডিসেম্বর আমার স্বামীকে সঙ্গে করে শ্বশুরবাড়িতে দিয়ে চলে যাই। শ্বশুরবাড়িতে আমাকে ঢুকতে না দিলেও আমি কিছু মনে না করে চলেও যাই।কারন আশা করে ছিলাম একদিন বোঝাপড়া হয়ে গেলে শ্বশুরবাড়ি আসবো।কিন্তু এখন আমার স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছি না।কৃষাণুকে লুকিয়ে রাখা হয়েছে।আমার সামনে আসতে দেওয়া হচ্ছে না।" যদিও কৃষাণুর বাবা, মা দু'জনেরই পাল্টা অভিযোগ তাদের ছেলেকে ভালো চাকরি দেওয়ার টোপ দিয়ে ডেকে নিয়ে গিয়ে বিয়ে করেছে ওই মহিলা।পাশাপাশি ফিরোজার আগেও একবার বিয়ে হয়েছিল বলে দাবি চন্দ্রশেখরবাবুর। ফিরোজা বলেন, " এসব মিথ্যা অভিযোগ। আমার স্বামীকে সবার সামনে হাজির করলে সব সত্য জানা যাবে।

Post a Comment

0 Comments

close