ভাতারের উষাগ্রামে রহস্যজনক বিস্ফোরণ এর ঘটনা ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ালো এলাকায়

Subscribe Us

ভাতারের উষাগ্রামে রহস্যজনক বিস্ফোরণ এর ঘটনা ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ালো এলাকায়


পূর্ব বর্ধমান জেলার ভাতার থানার উষাগ্রাম বৃহস্পতিবার ভোরে 'রহস্যজনক বিস্ফোরণ'এর  ঘটনা ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ালো পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে।ভাতারের উষাগ্রামের ঘোষপাড়ায় একটি বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে।ভেঙে পড়েছে বাড়ির একাংশ।উড়ে গিয়েছে আ্যসবেসটসের চাল। ফাটল ধরেছে বাড়িটির বিভিন্ন জায়গায়।বিস্ফোরণপর পর  আগুনও লাগে। অগ্নিদগ্ধ হয়ে গুরুতর জখম হয়েছেন পরিবারের বৃদ্ধা সুমিত্রা কর্মকার।তাকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা  হয়েছে।ঘটনার খবর পেয়ে যান ডিএসপি(ক্রাইম)শাশ্বতী শ্বেতা সামন্ত, ভাতার থানার ওসি প্রণব বন্দ্যোপাধ্যায় সহ পুলিশ বাহিনী।এলাকাবাসীর একাংশের সন্দেহ বাড়িতে মজুত বোমা থেকে এই ঘটনা ঘটে।তবে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের ধারনা মাটির বাড়িতে একতলায় আ্যসবেসটসের মেঝের ওপর কংক্রিটের ছাদ তৈরি করা হয়েছিল।অতিরিক্ত ভারের কারণে ভেঙে পড়ে।তারপর বাড়ির বিদ্যুৎ লাইনে সর্টসার্কিটের জেরে আগুন ধরে যায়।
উষাগ্রামের বাসিন্দা বিপত্তারন কর্মকারের বাড়িতে এদিন ভোর পৌনে চারটের সময় বিকট শব্দে প্রতিবেশীদের ঘুম ভেঙ্গে যায়। প্রতিবেশীরা বাড়িতে গিয়ে দেখতে পান বাড়ির একতলার ছাদ ভেঙে পড়েছে একটি ঘরে।সেই ঘরে শুয়েছিলেন বিপত্তারনের মা সুমিত্রাদেবী(৬২)।তিনি আঘাত পাওয়ার পাশাপাশি অগ্নিদগ্ধও হন। তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। 
মাটির দোতলা বাড়ির নীচের তলার একটি ঘরে শুয়েছিলেন বিপত্তারন, তার স্ত্রী রাখিদেবী এবং শিশু সন্তান।পাশের ঘরে সুমিত্রাদেবী ছিলেন। 
যদিও এদিন সকাল থেকে বিপত্তারনবাবুকে বাড়িতে দেখা যায়নি। তার দাদা সাধন কর্মকার বলেন, " আমি আলাদা বাড়িতে থাকি।পাড়ার লোকজন বোমা ফাটার মতন আওয়াজ শুনতে পান বলে জানতে পেরেছি।কিভাবে এটা ঘটল বুঝে উঠতে পারছি না।
আর এক ভাই সদন কর্মকার বলেন তিনি বাড়িতে ছিলেন না।ভেদিয়া গ্রামে ছিলেন। সকালে ভাই খবর দেয়। তারপর তিনি সরাসরি বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চলে আসেন। তিনি জানার তাঁরা কোন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত নন।কোন রাজনৈতিক দল করেন না। তিনি খড়ের ব্যবসা করেন।

Post a Comment

0 Comments

close