Subscribe Us

নন্দীগ্রামে চমক সিপিএমের,প্রার্থী হচ্ছেন মীনাক্ষি





পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামে সিপিআইএম প্রার্থী হচ্ছেন ডিওয়াইএফআই নেত্রী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়।প্রথমে জানা গিয়েছিল কুলটি বা বার্ণপুর এলাকায় সুবক্তা মীনাক্ষিকে প্রার্থী করা হতে পারে। কিন্তু শেষপর্যন্ত নন্দীগ্রামে তাঁকে প্রার্থী করল আলিমুদ্দিন। বুধবার আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তাঁর নাম ঘোষণা করেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। চিরাচরিতভাবে নন্দীগ্রাম আসনটিতে প্রার্থী দেয় বাম শরিক সিপিআই। সেই ১৯৫২ থেকে নন্দীগ্রামে প্রার্থী দিয়ে আসছে তারা। একটা সময় এই নন্দীগ্রাম সিপিআইয়ের গড় হিসেবেও পরিচিত ছিল। ২০০৯ সালের উপনির্বাচনের আগে পর্যন্ত এই কেন্দ্র থেকে কখনও জেতেনি তৃণমূল। কিন্তু শেষ দুটি নির্বাচনে বামেরা গিয়ে ঠেকেছে তলানিতে। এবারে নন্দীগ্রামে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। প্রার্থী হয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির তরফে আবার লড়ছেন সদ্য শাসক শিবির থেকে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেওয়া শুভেন্দু অধিকারী। যার জেরে নন্দীগ্রামই এখন রাজ্যের সবচেয়ে হেভিওয়েট কেন্দ্র। আর এই হেভিওয়েট কেন্দ্রে নিজেরাও হেভিওয়েট প্রার্থী দিতে চাইছিল বামেরা। প্রাথমিকভাবে বামেদের আলোচনায় উঠে এসেছিল তিনটি নাম। নন্দীগ্রামের ভূমিপুত্র মহাদেব ভুঁইয়া, DYFI জেলা সম্পাদক পরিতোষ পট্টনায়েক এবং সিপিএমের যুবনেতা প্রীতম কয়ালের নাম নিয়ে আলোচনা চলছিল। শোনা যাচ্ছে প্রাক্তন আইপিএস নজরুল ইসলামকেও অনুরোধ করা হয়েছিল এই কেন্দ্র থেকে দাঁড়াতে। কিন্তু তিনি সেই প্রস্তাবে রাজি হননি। শেষপর্যন্ত যুবনেত্রী মীনাক্ষীকেই বেছে নেওয়া হল, এই কেন্দ্রের প্রার্থী হিসেবে।উল্লেখ্য প্রথমে ওই আসনটি আব্বাস সিদ্দিকীর ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টকে ছেড়ে দিয়েছিল বামফ্রন্ট। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রার্থী হওয়ার পরেই ওই আসনে প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন সিপিএমের রাজ্য নেতারা।

Post a Comment

0 Comments