Subscribe Us

বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সহ-সভাপতির বাড়িতে দুষ্কৃতীদের গুলির চালানোর ঘটনায় রাজনৈতিক তরজা



নীলেশ দাস, আসানসোল:-মঙ্গলবার রাতে বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সহ-সভাপতি দ্বিগবিজয় সিং এর বাড়িতে ১০ থেকে ১২ রাউন্ড গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। গুলি বাড়ির দেওয়ালে বা দরজায় না লাগলেও, ভয় দেখানোর জন্যই হয়তো গুলি চালানো হয়েছে বলে অনুমান বিজেপি নেতৃত্বের। ঘটনাস্থলে হিরাপুর থানার পুলিশ এসে তদন্ত শুরু করে। অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছে থানায়। বুধবার সেখানে মধ্যপ্রদেশের গৃহ মন্ত্রী আসেন নির্বাচনী প্রচারে। তার আগে গভীর রাত্রে এভাবে গুলি চালিয়ে বাড়িতে থাকা বৃদ্ধ মা-বাবাকে ভয় দেখানোর একটা চক্রান্ত বলে মনে করছে বিজেপি নেতৃত্ব।
দ্বিগবিজয় সিং এর অভিযোগ, রাতে আসানসোলে কোর কমিটির বৈঠক চলছিল নির্বাচন প্রস্তুতি কে নিয়ে। হটাৎ মা এবং বাবার ফোন আসে,পিছন থেকে গুলির আওয়াজ শোনা যায়। ১০ থেকে ১২ রাউন্ড গুলি চালায়। পিছন থেকে বিভিন্ন ধরনের গালিগালাজ শুনতে পাওয়া যায়।ততক্ষনে পুলিশকে খবর দিলে,ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছায়। কিছুক্ষন পর সমস্ত কর্মী সহ বিজেপি প্রার্থীরা পৌঁছে গিয়ে দেখে।ততক্ষন তারা পালিয়ে যায়।এই ঘটনা প্রথম নয়,এইরকম অনেক ঘটনা ঘটেছে। বিজেপি বৃদ্ধি ও জনপ্রিয় তাই তারা ভয় পাচ্ছে। গণতান্ত্রিক ভাবে এর সাথে লড়াই করবো। 



অন্যদিকে বুধবার মধ্যপ্রদেশের গৃহ মন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন,তৃণমূলের গুন্ডারা ভেবে পাচ্ছে না,তারা বুঝে গেছে দিদি যাচ্ছে। দ্বিগবিজয় এর বাড়িতে হামলার প্রসঙ্গে বলেন ভারতীয় জনতা পার্টির কর্যকর্তারা জীবন লাগিয়ে দেবে। তিনি আরো বলেন ভ্রমে থাকবেন না। যেখানে থাকবেন পাতাল লেও লুকিয়ে থাকবে সেখান থেকেও টেনে আনবো। ৩মে সব মাফিয়া ও গুন্ডারা জেল এ থাকবে। খুঁজে খুঁজে বের করে নিয়ে আসবে।ভারতীয় জনতা পার্টির সরকার গঠন হলে সব মাফিয়া ও গুন্ডারা জেল এ থাকবে।



পাশাপাশি তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক ভি. শিবদশান দাশু বলেন,যে ঘটনা ঘটেছে আমরা দুঃখিত প্রশাসনকে বলেছি যত শীঘ্র তদন্ত করে দোষীদের গ্রেফতার করা হয়।ইতিহাস সাক্ষী আছে বিজেপি প্রার্থীরা রাত বারোটার পর বাইরে বেরোই না,এক ঘণ্টার মধ্যে পৌঁছে গেলো ঘটনাস্থলে, এইটা সন্দেহ আছে। এইটা রাজনীতির বেনিফিট তোলার চেষ্টা করছে।সুরক্ষা পাবার জন্যে করছে ,সেইটা আগে তদন্ত করার দরকার। নাম না করে ইঙ্গিত করে বলেন,কিছুদিন আগে এইরকম ঘটনা ঘটেছিল।তার জন্যে সুরক্ষা দেওয়া হয়েছে।তাই তারা সুরক্ষা নেওয়ার জন্যে এইধরনের ঘটনা করছে কি না,তদন্ত করা উচিত। বিজেপির এইটা স্ট্যাটাস হয়ে গিয়েছে।

Post a Comment

0 Comments