Subscribe Us

দেওয়াল লেখাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল বিজেপি হাতাহাতি, দেওয়াল মুছে দিলো নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকরা



নিলেশ দাস,আসানসোল:-আসানসোল উত্তর বিধানসভার চেলিডাঙা রেজেস্ট্রি অফিস সংলগ্ন এলাকায় দেওয়াল লেখাকে কেন্দ্র করে রবিবার রাত থেকে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত উত্তেজনা হয় নির্বাচন কমিশন মঙ্গলবার সকালে এসে সব দেওয়াল লেখা মুছে দিয়ে যায়। ঘটনা প্রসঙ্গে  বিজেপি কর্মী বিনোদ কুমার দুবে জানান গত রবিবার রাতে আমি আমার দেওয়ালে বিজেপি মনোনীত প্রার্থীর নাম লিখছিলাম সেই সময় সেখানে তৃনমুলের কয়েকজন এসে বাধা দেয় এবং  মারধর করে সেই সময় প্রানের ভয়ে আমি পালিয়ে যাই  রাত ১১ টা নাগাদ বাড়ি ফেরার সময় আমাকে ক্লাবে নিয়ে গিয়ে বেধড়ক মারধর করে, রাতে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে। সোমবার বিকালে ওই দেওয়ালে আবারও লিখতে গেলে ক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। তার ভাইপো  তৃনমুল কর্মী অভিরূপ দুবে প্রতিবাদ করে, শুরু হয় বচসা তার থেকে শুরু হয় হাতাহাতি। অন্যদিকে  অভিরূপ দুবের অভিযোগ ওই জায়গা দাদুর নামে আছে। আমাদের অনুমতি না নিয়ে দেওয়াল লেখা হচ্ছিল  আমি প্রতিবাদ করতে গেলে 
ধাক্কা দেওয়া হয়।ঘটনাস্থলে আসানসোল দক্ষিণ থানার পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি সামাল দেয়। কিছুক্ষণের জন্য পরিস্থিতি শান্ত হলেও ফের রাতে উত্তেজনা ছড়াল ৫০ নম্বর ওয়ার্ডে। বিনোদ কুমার দুবে অভিযোগ করেন এলাকার বিদায়ী কাউন্সিলার অভিজিৎ ঘটক রাতের বেলায় দলবল নিয়ে এসে তার বাড়ি এসে ভাঙচুর চালায়। পাশাপাশি তার বৃদ্ধা মাকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ করেন তিনি। ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণেন্দু মুখার্জী তিনি বলেন এলাকায় গুন্ডা রাজ চলছে। বিনোদ দূবের ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঢুকে তার ৮০ বছরের মাকে হেনস্তা করা হয়েছে। অপর দিকে ঘটনাস্থলে আসেন এলাকার বিদায়ী কাউন্সিলার অভিজিৎ ঘটক তিনি সব অভিযোগ অস্বীকার করে  তিনি বলেন যদি কেউ প্রমান করতে পারেন তাহলে রাজনীতি ছেড়ে দেব। তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা গুন্ডাগিরি করে না, চেলিডাঙ্গা এলাকায় তৃনমুল কংগ্রেস ছাড়া অন্যকোন দলের কোন অস্তিত্ব নাই। তৃণমূল কংগ্রেস হিংসার রাজনীতি করে না, বিজেপি অহেতুক দেওয়াল লেখাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়াতে চাইছে। বিনোদ দূবের মা তারামনি দেবী জানান কালকে রাত্রে অভিজিৎ ঘটকের নেতৃত্বে ছয় সাতজন তৃণমূল কর্মী ঘরে ঢুকে তাকে টেনে ঘরের বাইরে বার করে দিতে চাইছিল তার ফলে তিনি আহত হন। তিনি আরো অভিযোগ করেন দীর্ঘদিন ধরে এলাকার তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা তাদের ঘর দখল করে দলীয় অফিস তৈরী করতে চাইছে , এখন ছেলেরা বিজেপি করার কারণে আরো বেশী ক্ষিপ্ত হয়ে হয়ে উঠেছে।  ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে স্থানীয় পুলিশ কে সাথে নিয়ে নির্বাচন আধিকারিকরা এসে সব দেওয়াল লেখা মুছে দেয়  বিনোদ কুমার দুবের দাবি দেওয়াল লিখনের অনুমতি দিয়েছে তার দাবি শোনার পর নির্বাচন আধিকারিকরা বলেন যদি অনুমতি পত্র না থাকে তাহলে দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়া হবে।

Post a Comment

0 Comments