মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়া কে কেন্দ্র করে জনজোয়ারে ভাসলো আসানসোল

Subscribe Us

মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়া কে কেন্দ্র করে জনজোয়ারে ভাসলো আসানসোল

 


নীলেশ দাস, আসানসোল :- জনজোয়ারে ভাসলো আসানসোলের বি এন আর সংলগ্ন এলাকা ও মহকুমা শাসকের দপ্তর। মনোনয়নপত্র জমা দিতে মহকুমা শাসকের  দপ্তরে প্রথম পৌঁছায় বারাবনি বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী অরিজিৎ রায়,তার পর ঢাকঢোল সহকারে বিজেপি কর্মিসমর্থকদের নিয়ে পৌঁছায় আসানসোল দক্ষিণ বিধানসভার প্রার্থী অগ্নিমিত্রা পাল। এরপর আসানসোল উত্তর বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণেন্দু মুখার্জি। তার পাশাপাশি জামুড়িয়া বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী তাপস রায় ও কুলটি বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী ডাক্তার অজয় পোদ্দার।বিজেপির পাঁচজন প্রার্থী এদিন মহকুমা শাসকের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন তারা। এদিন অরিজিৎ রায় বলেন যে হারে করোনা বৃদ্ধি হচ্ছে তারই কারণে কর্মীদের ভিড় করতে বা জমায়েত করতে বারণ করা হয়েছিলো কিন্তু কর্মীদের মধ্যে এত উচ্ছাস যে বারণ করা সত্বেও তারা আমার নমিনেশন এসেছে।এটা নিশ্চিত বারাবনির রায় মানুষ মনে মধ্যে স্থির করে ফেলেছে আগামী ২৬ তারিখ ভোট ,আর ২রা মে নির্বাচনের রেজাল্ট বারাবনি বিধানসভার ইভিএম যখন খোলা হবে তখন বিজেপির ঝড় বুজতে পারবে বিরোধীরা। এরপর অগ্নিমিত্রা পল জানান মানুষের উৎসাহ দেখে বোঝা যাচ্ছে মানুষ বিজেপির সাথে আছেন। আমি বিজেপির মহিলা মোর্চার রাজ্য সভানেত্রী হওয়ার পর সারা পশ্চিম বঙ্গ দৌড়েছি, নির্যাতিতা মহিলার পাশে যদি কেউ থাকে তাহলে সেটা হলো অগ্নিমিত্রা পল।

এরপর দুপুর  দেড়টা নাগাদ বর্ণাঢ্য একটি বিশাল মিছিল করে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যায় সায়নী ঘোষ।তার পাশাপাশি আসানসোল  উত্তর বিধানসভার প্রার্থী মলয় ঘটক মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান।ঢাকঢোল সহকারে পায়ে হেঁটে মিছিল করে মহকুমার শাসক দপ্তর যায়। প্রথমে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান আসানসোল দক্ষিণ বিধানসভার তৃণমূল প্রার্থী সায়নী ঘোষ। মিছিলে সঙ্গে পায়ে হেঁটে হলুদ শাড়ি পরণে  সঙ্গে মাল্টি কালারের ওড়নায় তৃণমূলের প্রতীক লাগিয়ে রাস্তার দু'পাশে জড়ো হওয়া মানুষকে হাত নাড়তে জেলাশাসকের দপ্তরের সামনে পৌঁছান সায়নী ঘোষ, এদিন তার সঙ্গে ছিলেন তার মা।এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, 'ভীষণ এক্সাইটেড, গর্বিত বোধ করছি। গুরুত্বপূর্ণ ও দায়িত্বপূর্ণ কাজের ভার দিদি আমাকে দিয়েছেন। একই সঙ্গে আসানসোল মানুষ তাঁকে সাহায্য করবেন বলে তিনি 'আশাবাদি' জানিয়ে বলেন, আজকে মানুষের উৎসাহই বলে দিচ্ছে ভোটের কি ফলাফল হবে।

সাংবাদিকদের অন্য এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, 'শ্যুটিং করতে অনেক কষ্ট করেছি। এখানে না হয় আর একটু কষ্ট করবেন বলে তিনি জানান।মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানান উত্তর বিধানসভার প্রার্থী মলয় ঘটক  এবার পশ্চিম বর্ধমানে সব আসনেই জিতবে তৃণমূল,যে দল প্রার্থী দিক না কেনো,আমার কোনো প্রতিপক্ষ নেই উত্তর বিধানসভায়।আমি মানুষের সঙ্গে ৩৬৫ দিন থাকি,মানুষের কাজ করি,এবং মানুষের সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করি।তারপর বারাবনি বিধানসভার তৃণমূল প্রার্থী বিধান উপাধ্যায় মানুষের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যায়, এদিন তিনি জানান বারাবনির মানুষ তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে। তারই প্রমাণ আজকের সমাগম।বারাবনি হচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসের ঘাঁটি।তার প্রমাণ আগামী ২ তারিখ রেজাল্ট ঘোষণার পর বিরোধীরা বুজতে পারবে।শুধুমাত্র মানুষের কাছে অনুরোধ শান্তি বজায় রেখে ভোট দিন এবং উন্নয়নের পক্ষে ভোট দিন।তার পাশাপাশি জামুড়িয়া বিধানসভার তৃণমূল প্রার্থী হিরেরাম সিং মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন,তৃণমূল প্রতিটা জায়গায় জিতছে,এবং বিপুল ভোটে জয়ী হবেন,যদি এই নির্বাচনে জয়ী হন তাহলে তার প্রথক কাজ থাকবে জামুড়িয়াই দূষণ নিয়ন্ত্রণে আনবে কেননা সেখানে রাস্তা পথঘাটে ব্যাপক ভাবে ধুষণ হয় যার ফলে সাধারণ মানুষদের অসুবিধা হয়,পাশাপাশি একটা হাইওয়ে বানানোর পরিকল্পনা রয়েছে।


বিজেপির ও তৃণমূলের যেসকল প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা করেন আসানসোল মহকুমা শাসক দপ্তরে :-
পশ্চিম বর্ধমান জেলার ২৭৯ নম্বর  বিধানসভা কেন্দ্রের জামুড়িয়ার বিজেপি প্রার্থী তাপস রায় ও তৃণমূলের হরেরাম সিং,২৮০ নম্বর আসানসোল দক্ষিণ বিধানসভা বিজেপি  প্রার্থী অগ্নিমিত্রা পল ও তৃণমূলের সায়নী ঘোষ  , ২৮১ নম্বর আসানসোল উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণেন্দু মুখার্জী ও তৃণমূলের মলয় ঘটক , ২৮২ নম্বর কুলটি বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী ডঃ অজয় পোদ্দার ও এদিন কুলটি বিধানসভা থেকে তৃণমূলের প্রার্থী উজ্জ্বল চ্যাটার্জী মনোনয়ন পত্র জমা করেন নি ,২৮৩ নং কেন্দ্রে বারাবনি বিধানসভা কেন্দ্রের  বিজেপি প্রার্থী অরিজিৎ রায় ও তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী বিধান উপাধ্যায় মনোনয়ন জমা করলেন।

Post a comment

0 Comments