'আমি রাজনীতির কিছু বুঝি না,মানুষ নীতি করি' ভাতারে নির্বাচনী সভা থেকে বললেন মিঠুন চক্রবর্তী

Subscribe Us

'আমি রাজনীতির কিছু বুঝি না,মানুষ নীতি করি' ভাতারে নির্বাচনী সভা থেকে বললেন মিঠুন চক্রবর্তী


আমি রাজনীতির কিছু বুঝি না।মানুষ নীতি করি।তাই এখানে এসেছি বলে মন্তব্য করলেন অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী।শুক্রবার পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে নির্বাচনী সভায় উপস্থিত ছিলেন মিঠুন চক্রবর্তী। ভাতার বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী মহেন্দ্র কোনারের সমর্থনে এদিন ভাতারের স্কুল মাঠে সভা হয়। তিনি বলেন,  ৪৪ বছর ধরে শুধু বিরোধিতা করা হয়েছে। তাই কোন উন্নতি হয় নি এই রাজ্যে।তাই আমি রাজনীতিতে এসেছি।আমি  যা বলি তা করে দেখায়।আমাদের জেলায় যে হাসপাতাল আছে,সেই হাসপাতালের জেনারেল বেডে এসি বসবে।কারণ বড়লোকের বাচ্ছা হবে এসি রুমে।আর আমার গরিব বোনের বাচ্ছা জেনারেল বেডের গরমে।তা হবে না।  মেয়েদের বাসে টিকিট লাগবে না। কেজি থেকে পিজি বা কলেজে কোন পয়সা লাগবে না।মেয়েদের পড়াশোনা ফ্রি ৷ বিধবাদের মাসে তিন হাজার করে টাকা দেওয়া হবে।১৮ বছর বয়স হলে প্রত্যেক বোনের একাউন্টে ২ লক্ষ করে টাকা ঢুকবে।এদিন কৃষাণনিধি প্রকল্প নিয়ে রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করেন মিঠুন চক্রবর্তী। তিনি বলেন, বিজেপি রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর  কৃষকদের কৃষাণনিধি প্রকল্পের টাকা ঢুকবে বছরে ৬ হাজার করে টাকা।আয়ুসমান প্রকল্প নিয়েও তিনি আক্রমণ  করেন রাজ্যকে।তিনি বলেন,বিজেপি সরকার এলে কোন সন্ত্রাস হবে না,দাঙা হবে না।মুসলমানদের ভাইদের বলছি একবার ভাবুন। এত বছর তো আপনাদের কোন উন্নতি হয় নি।অন্যদিকে তিনি বলেন,রেশন নাকি বাড়িতে পৌঁছে যাবে।৬ কোটি লোককে রেশন দিতে ৬ কোটি লোক লাগবে।এত লোক কোথায়। তিনি বলেন, রেশনে মাল কম দিলে ফোন করবে ফাটাকেষ্ট হাজির হয়ে যাবো।১৮ বছরের স্বপ্ন। গরিবদের উন্নয়ন করবো তাই রাজনীতিতে এসেছি বলে মন্তব্য করেন মিঠুন চক্রবর্তী।

Post a comment

0 Comments