পূর্ব বর্ধমান জেলায় ভোট পরবর্তী অশান্তি অব্যাহত,মেমারির চকদিঘী মোড় এলাকায় ভেঙে দেয়া হল চায়ের দোকান

Subscribe Us

পূর্ব বর্ধমান জেলায় ভোট পরবর্তী অশান্তি অব্যাহত,মেমারির চকদিঘী মোড় এলাকায় ভেঙে দেয়া হল চায়ের দোকান



পূর্ববর্ধমানে ভোট পরবর্তী অশান্তি অব্যাহত।  এবার ভাঙ্গা হলো একটি চায়ের দোকান।ঘটনাটি ঘটেছে  মেমারি থানার চকদিঘী মোড় এলাকায় চায়ের দোকানের মালিক বাসুদেব দের  অভিযোগ তার দোকানের সামনের চালের একটি বাঁশ ভেঙে যাওয়ায়  সেই বাঁশটি পরিবর্তন করছিলেন। সেই সময় মেমারি পৌরসভার পাম্প চালক তথা ৪ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির সদস্য মলয় ঘোষ সহ আরো বেশ কয়েকজন এসে তাকে বাধা দেয় ।বাঁশ পাল্টানোর জন্য পৌরসভার অনুমতি দেখতে চাওয়া হয়। তর্কাতর্কি থেকে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে উভয়ই।
বাসুদেব  দের অভিযোগ,  তৃণমূলের  কর্মীরা তার দোকান ভাঙচুর করে, তাকে মারধরও করা হয়। তিনি আরো বলেন, বিজেপি কর্মীরা তার দোকানে চা খেতে আসার কারণে দোকানে হামলা চালানো হয়।  তিনি কোন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত নন।
মলয় ঘোষের দাবি, এদিন সকালে তিন থেকে চারজন মিলে বাসুদেব দের  দোকানে যখন চা খেতে যাই। সেই সময়ের রাজনৈতিক প্রসঙ্গ নিয়ে দোকানে আলোচনা চলছিল। হঠাৎই বাসুদেব চাকু নিয়ে তাদের ওপর আক্রমণ চালায়। বাসুদেব দে একজন বিজেপি কর্মী বলেও দাবি করেন।
মেমারি পৌরসভার সহ প্রশাসক তথা জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক সুপ্রিয় সামন্ত বলেন, বাসুদেব দে  একটি অবৈধ কনস্ট্রাকশন করছিল পৌরসভার অনুমতি না নিয়ে। তাই ওয়ার্ড কমিটির মেম্বার তাকে বাধা দিতে গেলে চাকু নিয়ে  তার ওপর  হামলা করে।
অন্যদিকে বিজেপির পাল্টা অভিযোগ,  নির্বাচনে তৃণমূলের হার  নিশ্চিত জেনে তারা আখের গোছাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। একটি বাঁশ পাল্টানোর জন্য কখনো অনুমতির প্রয়োজন নেই। কিন্তু ওই অনুমতি না নেওয়ায় তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃত্বরা তোলা আদায়ের জন্য গেছিল। তাই ওই ব্যক্তি তোলা না দেওয়ায় তাকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ বিজেপির।গোটা বিষয় নিয়ে, দুই পক্ষই মেমারি থানায় একে অপরের বিরুদ্ধে নালিশ জানায়।

Post a comment

0 Comments