বর্ধমানের সরাইটিকরে বিজেপি নেতার বাড়িতে হামলার অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে,অভিযোগ অস্বীকার তৃণমূলের

Subscribe Us

বর্ধমানের সরাইটিকরে বিজেপি নেতার বাড়িতে হামলার অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে,অভিযোগ অস্বীকার তৃণমূলের

ভোট পরবর্তী হিংসায় ঘরছাড়াদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় পুলিশ আধিকারিকদের সাথে বৈঠক করছেন কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশন। আর এরই মাঝে বৃহস্পতিবার রাতে এক বিজেপি নেতার বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। 

অভিযোগ,গতকাল রাতে বর্ধমান উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রের সরাইটিকর গ্রাম পঞ্চায়েতের বিদ্যাসাগর পল্লীর বিজেপি নেতা সুধীরঞ্জন সাউ ওরফে জগ্গুর বাড়িতে একদল তৃণমূল আশ্রিত দুস্কৃতি হামলা চালায়।ওই পরিবারের অভিযোগ, ৩০-৩৫ জনের দুস্কৃতী দল বেধে, মুখে মাস্ক পরা অবস্থায় ছিল। হাতে রড, লাঠি,তলোয়ার সহ একাধিক অস্ত্র নিয়ে তার বাড়িতে হামলা করা হয় বলে জানান সুধীরঞ্জন বাবু। তিনি জানান, বাংলায় থাকতে গেলে বিজেপি করা যাবে না বলে শাসাতে থাকে তারা।  

বাড়ির জানালার কাঁচে বোতল, ইট ছুড়ে মারা হয়। বাড়ির সমস্ত জানালা ভেঙে ফেলে দুস্কৃতিরা। বাড়ির পাশে রাখা তার একটি টোটোতেও ভাঙচুর চালানো হয়। বাড়ি ভাঙচুরের সময় সুধীরঞ্জন তার পরিবারসহ একটি ঘরে আশ্রয় নেয়, তাই তারা প্রাণে বেঁচে যান বলে দাবি করেন  বিজেপি নেতা সুধীরঞ্জন। 

তিনি জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ এলে পালিয়ে যায় দুস্কৃতীরা। ঘটনার পর থেকে আতঙ্কে রয়েছে বিজেপি নেতার পরিবার। সুধীরঞ্জনের মা সুশীলা দেবী জানান, গতকাল রাতের পর থেকে আমরা প্রচন্ড আতঙ্কে রয়েছি। আমার ছেলে বিজেপি করে বলেই তৃণমূলের দুস্কৃতীরা আমাদের বাড়িতে হামলা করলো। ছেলেকে না পেলে যাকে পাব তাকেই মারবো বলে হুমকি দিতে থাকে দুস্কৃতিরা। 

এবিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস জানান,' এই ঘটনার সাথে তৃণমূল কংগ্রেসের কোন যোগ নেই। ভোটের আগে এরা ভেবেছিল বিজেপি ক্ষমতায় আসছে। তাই এরা হয়ত বিভিন্ন মানুষের কাছে ব্যবসা ও চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা নিয়েছিল। এটা তার বহিঃপ্রকাশ হতে পারে। মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নির্দেশে আমরা বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি কর্মীদের ঘরে ফেরানোর কাজ করছি। তৃণমূল কংগ্রেসকে বদনাম করার জন্য বিজেপি তাদের উপর এই ঘটনার দায় চাপাচ্ছে।

Post a Comment

0 Comments