বর্ধমান বোলপুর জাতীয় সড়কের উপর খড়ি নদীর উপরে সেতু এখন মরণফাঁদ

Subscribe Us

বর্ধমান বোলপুর জাতীয় সড়কের উপর খড়ি নদীর উপরে সেতু এখন মরণফাঁদ

সেতুর বেহালদশা। তবু হুঁশ নেই প্রশাসনের। বর্ধমান বোলপুর জাতীয় সড়কের উপর হলদীর খড়ি নদীর উপরে সেতু এখন মরণফাঁদ। গত দু'বছর এই সেতুর দুর্ঘটনায় বেশ কয়েকটি প্রাণ চলে গেছে। তবু প্রশাসনের কোন হেলদোল নেই। 

মাস তিনেক আগে জাতীয় সড়ক ২ বি-র মেরামতের কাজ হয় বর্ধমান থেকে বোলপুর পর্যন্ত। তখন নামকা ওয়াস্তে খড়ি নদীর সেতুর উপর জয়েন্টের গর্তে পিচ ও পাথর দিয়ে মেরামত করা হয়।মেরামতের ক'দিনের পর থেকেই পিচ ও পাথর উঠতে থাকে গাড়ির চাপে।বর্ষার বৃষ্টিতে গর্ত এখন বিশাল আকার নিয়েছে। সেতুর উপর দুটি জয়েন্টের মাঝখানে লম্বা বিশাল গর্ত তৈরি হয়েছে। চারচাকা বা বড় গাড়ি গর্তে পড়লে কোনরকমে টাল সামলে নিচ্ছে। কিন্তু বাইক গর্তে পড়ে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটছে ।ফলে প্রায় প্রতিদিনই ছোট বড় দুর্ঘটনা লেগেই আছে হলদী সেতুর উপর।

অজয় নদের বালি আর বীরভূমের পাঁচামীর পাথর বোঝাই ডাম্পারে সেতুর জয়েন্টে প্রতিদিনই গর্তের আকার বাড়ছে।তার উপর আছে ওভারলোডের গাড়ি।এমনিতে সারা বছরই বোলপুর বর্ধমান জাতীয় সড়কে প্রচুর যানবাহনের চাপ থাকে।মূলত পাথর ও বালি বোঝাই ডাম্পার ও লরির চাপে রাস্তা খুবই ব্যস্ত থাকে। বর্ষার বৃষ্টিতে গর্তে জল জমে থাকলে বাইক আরোহীরা ঠিকমত বুঝতে পারছেন না।তাতেই দুর্ঘটনার সংখ্যা বাড়ছে।স্থানীয়রা বলেন,বেশী সমস্যা হচ্ছে রাতে।সেতুর উপর জয়েন্টের গর্ত ঠিকমত বুঝতে না পারলেই দুর্ঘটনা পড়ছেন বাইক আরোহীরা।

কয়েক বছরে উত্তরবঙ্গের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের যোগাযোগের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হয়ে উঠেছে এই জাতীয় সড়ক।২ নম্বর জাতীয় সড়কের থেকে অনেকটা রাস্তা কমে যায় ।রামপুরহাট,বোলপুর বা তারাপীঠ যাওয়ার ক্ষেত্রে সবাই এই রাস্তায় বেশী ব্যবহার করেন।ফলে প্রতিদিনই এনএইচ টু বি-র উপর যানবাহনের চাপ বাড়ছে।

এই বিষয়ে জেলা পরিষদের সহসভাধিপতি দেবু টুডু বলেন,হাইওয়ে অথরিটির সঙ্গে কথা হয়েছে। খুব দ্রুত সেতুর উপর জয়েন্টের গর্ত মেরামত করা হবে।

Post a Comment

0 Comments