সাত বছরের সন্তান সহ মায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যু, চাঞ্চল্য ছড়ালো পূর্ব বর্ধমানের খণ্ডঘোষে

Subscribe Us

সাত বছরের সন্তান সহ মায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যু, চাঞ্চল্য ছড়ালো পূর্ব বর্ধমানের খণ্ডঘোষে

সাত বছরের শিশু সন্তান সহ মায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ালো পূর্ব বর্ধমানের খণ্ডঘোষে।মৃত মা ও ছেলের নাম সুষমা মালিক(২৭) ও মহাদেব মালিক(৭)। দেড় বছরের শিশুকন্যা নিখোঁজ। 

বছর আটেক আগে বাঁকুড়ার পাত্রসায়রের গোস্বামী গ্রামের তরুণী সুষমার সঙ্গে খণ্ডঘোষের অমরপুর গ্রামের বাসিন্দা বিপুল মালিকের বিয়ে হয়।মৃতার পরিবারের অভিযোগ বিয়ের বছর দেড়েকের পর থেকেই বিভিন্ন কারণে সুষমার উপর অত্যাচার শুরু করে স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। 

সুষমার দাদা প্রশান্ত দলুই বলেন,বাবার বাড়ি থেকে টাকার আনার জন্য চাপ সৃষ্টি করা হত বোনের উপর।পাশাপাশি বোনের চরিত্র নিয়েও সন্দেহ করতো শ্বশুর বাড়ির লোকেরা। এই নিয়ে মাঝেমধ্যেই অশান্তি হত। অশান্তি থানা পর্যন্ত গড়ায়।তবে পুলিশী হস্তক্ষেপে সব ঠিক ঠাক হয়ে যায়।

মৃতার দাদা প্রশান্ত দলুই বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে খবর পেয়ে অমরপুর গ্রামে গিয়ে তারা দেখেন সুষমা ও মহাদেবের নিথর দেহ মেঝেতে পড়ে আছে।দেড বছরের ভাগ্নী নিখোঁজ।ঘটনার পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছে স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি। 

প্রতিবেশীরা ঘটনা সম্বন্ধে কিছু বলতে অস্বীকার করেন। প্রতিবেশীরাই সুষমা ও মহাদেবের ঝুলন্ত দেহ নামায়। খণ্ডঘোষ থানার পুলিশ দুটি মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজের পুলিশ মর্গে পাঠায়। মৃতার পরিবারের দাবী সুষমা ও মহাদেবকে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। তারা স্বামী সহ পরিবারের সকলের কঠিন শাস্তির দাবী করেন।

Post a Comment

0 Comments

close