Subscribe Us

প্রাচীন সোনার মুদ্রা বিক্রির নামে জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার তিনজন

নিজস্ব প্রতিনিধি:- প্রাচীন সোনার মুদ্রা বিক্রির নামে জালিয়াতির অভিযোগে তিনজন গ্রেপ্তার হল পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রামে।ধৃতদের তিনজনের নাম সাগর মণ্ডল,খোকন সাহা এবং  শেখ মেহের।এদের মধ্যে প্রথম দু'জনের বাড়ি আউশগ্রামের ভেদিয়ায়।আর শেখ মেহের বাড়ি বীরভূমের  সাঁইথিয়ার ভ্রমরকোল গ্রামে। শুক্রবার রাতে ভেদিয়া এলাকা থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে গুসকরা ফাঁড়ির পুলিশ।ধৃতদের কাছ থেকে পুলিশ উদ্ধার করেছে নগদ ১ লক্ষ ১৪ হাজার টাকা,নম্বরপ্লেটবিহীন একটি মোটরসাইকেল এবং ৬টি মোবাইল ফোন।পুলিশ ধৃতদের জেরা করে চক্রের অন্যান্যদের  নাগাল পাওয়ার চেষ্টা করছে ।

পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুর এলাকার বাসিন্দা পেশায় গাড়িচালক বিমল কুমার মাল শুক্রবার গুসকরা ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করেন।তার অভিযোগের ভিত্তিতেই ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।বিমলবাবু জানান বেশকিছুদিন আগে রাজীব দাস নাম করে তাকে  ফোন করা হয়।বলা হয় পুরানো আমলের ২০০ টি পুরানো সোনার মুদ্রা তাদের কাছে আছে।সেগুলি কম টাকায় বিক্রি করতে চান।

বিমলকুমার বলেন,'আমি প্রথমে গুরুত্ব দিইনি।বারবার ফোন করার পর আমি গত ১৬ জুলাই গুসকরা বাসস্ট্যাণ্ডে এলে ওরা তিনজন মিলে আমাকে একটি মোহর দেখায়।সেটি নিয়ে গিয়ে একটি সোনারূপোর দোকানে পরীক্ষা করাই।তখন সেটি সোনার বলে জানতে পারি তখন বিশ্বাস হয়।এরপর বিমলবাবুর সঙ্গে ২০০ টি মুদ্রার তিন লক্ষ টাকা দামের রফা হয়।তিনি জানান শুক্রবার বিকেলের দিকে তিন লক্ষ টাকা নিয়ে গুসকরা শহরে আসেন।২০০ টি মুদ্রার বিনিময়ে ৩ লক্ষ টাকা নিয়ে চলে যায় তিনজন।কিছুক্ষণ পর গুসকরা শহরে একটি সোনারূপোর দোকানে গিয়ে ওই মুদ্রাগুলি পরীক্ষা করান বিমলবাবু।তখন তিনি জানতে পারেন প্রতারিত হয়েছেন।তারপর সমস্ত ঘটনা জানিয়ে গুসকরা ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করেন।

পুলিশ তদন্তে নেমে মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে ভেদিয়া এলাকা থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। ধৃতদের এদিন বর্ধমান আদালতে তোলা হয়।

Post a Comment

0 Comments