পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কাঁকসার সাতটি জায়গায় তৃণমূলের অবস্থান বিক্ষোভ

Subscribe Us

পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কাঁকসার সাতটি জায়গায় তৃণমূলের অবস্থান বিক্ষোভ

তনুশ্রী চৌধুরী,কাঁকসা:- পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কাঁকসা ব্লকে সাতটি জায়গায় সকাল থেকেই তৃনমূল কংগ্রেসের কর্মীরা অবস্থান বিক্ষোভে বসেছে। কাঁকসার শ্রীলামপুর, আরা, গোপালপুর, পানাগর বাজার, পানাগর এর দার্জিলিং মোড়, সহ মোট সাতটি জায়গায় সকাল থেকেই তৃনমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখান। 

পাশাপাশি কাঁকসা ব্লক তৃণমূল যুব কংগ্রেস এর অবস্থান বিক্ষোভ ও গণসাক্ষর কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয় বনকাটির এগারো মাইল ও আমলাজোড়া অঞ্চলের সিলামপুর পেট্রল পাম্প এর সামনে।এছাড়াও কাকসা ব্লক যুব তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে কাঁকসার বামুনারা হাট তলায় প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির কুশপুতুল জ্বালিয়ে পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখালেন তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা। এদিন প্রতিবাদ সভায় যোগ দেন কাঁকসা ব্লকে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি কুলদীপ সরকার,দুর্গাপুর পূর্বের বিধায়ক প্রদীপ মজুমদার ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের জেলা সভাপতি বিস্বনাথ পারিয়াল সহ তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা।

তৃণমূলের কর্মীরা এ দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে মৃত সাজিয়ে রাস্তার ওপরে কাঠের স্ট্রেচার বানিয়ে তার ওপর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কুশপুতুল রেখে প্রধানমন্ত্রীর কুশপুতুল জ্বালান যুব তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা। পেট্রোল ডিজেল,রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি এদিন এলাকার মানুষের কাছে গণ স্বাক্ষর সংগ্রহ করেন তৃণমূল কর্মীরা।

পাশাপাশি,কাঁকসার রেলপাড়ে শনিবার সকাল থেকেই অবস্থান বিক্ষোভে বসেছে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা।রাজ্যের পাশাপাশি এদিন রেলপারেও অবস্থান বিক্ষোভে বসেন তৃণমূল কর্মীরা। এদিন অবস্থান বিক্ষোভে যোগ দেন কাঁকসা ব্লকে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি দেবদাস বক্সী, পশ্চিম বর্ধমান জেলার জেলা পরিষদের সহ - সভাধিপতি সমীর বিশ্বাস সহ কাঁকসা গ্রাম পঞ্চায়েতের পঞ্চায়েত সদস্যরা। পশ্চিম বর্ধমান জেলার জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি সমীর বিশ্বাস বলেন কেন্দ্র সরকার যেভাবে পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করে চলেছে নিত্যদিন। রাজ্যের মানুষকে অনাহারে মরতে হতো যদি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সাধারণ মানুষের পাশে না দাঁড়াত।

তিনি বলেন কেন্দ্র সরকার সাধারণ মানুষের কথা ভাবছে না। পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি বেড়ে গেলেও তা নিয়ন্ত্রণ করার কোন রকম উদ্যোগ নিচ্ছে না কেন্দ্র সরকার। যার জন্য পরিবহন ব্যবস্থা তেও খরচ বাড়ছে যার জেরে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্য বৃদ্ধি বেড়ে চলেছে। করোনা আবহে বহু মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছেন ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্য বৃদ্ধি বেড়ে যাওয়ায় সমস্যায় পড়তে হয়েছে সাধারণ মানুষকে।সারা রাজ্যের পাশাপাশি রেলপাড়েও এদিন অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচি নেয়া হয়েছে। যতদিন না পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি কমছে ততদিন তৃণমূল এর প্রতিবাদে পথে নামবে।কেন্দ্র সরকারের প্রতি তিনি হুশিয়ারি দেন যদি দ্রুত পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির না কমে তবে তৃণমূল নেত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী আগামী দিনে রাজ্য জুড়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবে তৃণমূল কর্মীরা।

অপরদিকে পেট্রোল ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে তৃণমূলের বিক্ষোভ কর্মসূচিকে কটাক্ষ করলেন বর্ধমান সদরের জেলা বিজেপি সহ সভাপতি রমন শর্মা। তিনি বলেন একদিকে যখন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী করোনার জন্য রথযাত্রা অনুষ্ঠান বাতিল করেছেন এবং সকলকে করোনার বিধিনিষেধ মানার কথা বলছে। তখন দলেরই কর্মীরা কোনরকম বিধিনিষেধ নামে নেই অবস্থান-বিক্ষোভ করছে। অপরদিকে তিনি বলেন বিজেপি কর্মীরা যখন রাস্তায় প্রতিবাদে নামে তখন তাদের গ্রেপ্তার করা হয় কিন্তু করোনার বিধিনিষেধ না মেনে যখন তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করছে তখন পুলিশ কেন নীরব সেই প্রশ্ন তুলেছেন বিজেপি নেতা রমন শর্মা।

Post a Comment

0 Comments